গণপরিবহণ চালুর সিদ্ধাকোরআন-হাদিসে সচ্ছলতা লাভের ৫ উপায়

28

ধর্ম প্রতিবেদন:
মানুষ বলতেই সবাই সচ্ছল হতে চায়। চায় সে জীবনের অতীব ঘনিষ্ঠ প্রসঙ্গ জীবিকার ব্যাপারে ভাবনামুক্ত হতে। আল্লাহ পাক মুমিনের প্রাত্যহিক জীবনাচারেরই কিছু কর্মকাণ্ডের মধ্যে এমন বৈশিষ্ট্য রেখেছেন যে, সেগুলোর সুষ্ঠু অনুসরণের ফলে জীবিকার চেষ্টায় নিয়ত গলদগর্ম হতে মুক্তি পেতে পারে। সহজে সচ্ছলতা লাভের ১০টি উপায় এখানে আলোচনা করা হল।
১. তওবা-ইস্তেগফার: আল্লাহ প্রদত্ত জীবিকা লাভের অন্যতম মাধ্যম হল তওবা-ইস্তেগফার ও ক্ষমা প্রার্থনা করা। হজরত নূহ (আ.) স্বীয় কওমকে উদ্দেশ্য করে বলেছেন, তোমরা তোমাদের পালনকর্তার কাছে ক্ষমা প্রার্থনা কর। তিনি অত্যন্ত ক্ষমাশীল। তিনি তোমাদের ওপর অজস্র বৃষ্টিধারা বর্ষণ করবেন, তোমাদের ধন-সম্পদ ও সন্তান-সন্তুতি বৃদ্ধি করে দেবেন, তোমাদের জন্য উদ্যান স্থাপন করবেন এবং তোমাদের জন্য নদী-নালা প্রবাহিত করবেন। (সূরা নূহ, আয়াত : ১০-১২) আয়াতটিতে আল্লাহ পরিষ্কার বলেছেন, তওবা-ইস্তেগফারের মাধ্যমে তিনি ধন-সম্পদ বাড়িয়ে দেবেন। সুতরাং জীবিকার সচ্ছলতা প্রত্যাশীদের জন্য অধিক পরিমাণে তওবা ও ইস্তেগফার করতে থাকা উচিত।
২. তাকওয়া ও খোদাভীতি: তাকওয়া ও খোদাভীতি যে জীবিকা লাভের অন্যতম একটি উপায়, এ প্রসঙ্গে মহান রাব্বুল আলামিন এরশাদ করেন, যে ব্যক্তি আল্লাহকে ভয় করে, আল্লাহ তার জন্য নিষ্কৃতির পথ বের করে দেবেন। এবং তাকে তার ধারণাতীত জায়গা থেকে রিজিক দেবেন। (সূরা তালাক, অয়াত : ২-৩) হাফেজ ইবনে কাসির (রহ.) উপরোক্ত আয়াত দুটির তাফসির প্রসঙ্গে বলেন, যে ব্যক্তি আল্লাহ পাকের নির্দেশাবলী পালন করে এবং তার নিষিদ্ধ কার্যাবলী হতে বিরত থেকে তাকওয়া অবলম্বন করে, আল্লাহ পাক তার জন্য সব বিপদাপদ হতে মুক্ত হওয়ার পথ করে দেবেন, যেখান থেকে রিজিক লাভ করার কথা সে স্বপ্নেও চিন্তা করে না। (তাফসিরে ইবনে কাসির ৪/৪০০)
৩. আল্লাহর ওপর ভরসা: যে সব উপায় অবলম্বনের মাধ্যমে জীবিকায় সচ্ছলতা লাভ করা যায়, তন্মধ্যে অন্যতম হল, মহান আল্লাহর ওপর তাওয়াক্কুল বা ভরসা করা। হজরত আব্দুল্লাহ ইবনে ওমর (রা.) হতে বর্ণিত, রাসূল (সা.) এরশাদ করেছেন, আল্লাহ পাকের ওপর যেমন ভরসা করা উচিত তোমরা যদি তার ওপর তেমন ভরসা কর, তাহলে পাখিদেরকে যেভাবে রিজিক প্রদান করা হয়, অর্থাৎ সকালে তারা শূন্য উদরে বেরিয়ে যায় আর সন্ধ্যায় পূর্ণ উদরে ফিরে আসে, তোমাদেরকেও ঠিক এভাবে রিজিক প্রদান করা হবে। (জামে তিরমিজি, হাদিস : ২৩৪৪) তবে তাওয়াক্কুল অর্থ জীবিকা লাভের জন্য চেষ্টা-পরিশ্রম ত্যাগ করে হাতগুঁটিয়ে বসে থাকা নয়। বরং যথারীতি মেহনতের পাশাপাশি ভরসা রাখতে হবে মহান আল্লাহর ওপর। আর এ বিশ্বাস রাখতে হবে যে, সমস্ত কিছু তার হাতেই নিয়ন্ত্রিত এবং রিজিকের ব্যবস্থা একমাত্র তিনিই করে থাকেন।
৪. ইবাদতের জন্য ফারেগ হওয়া: অর্থাৎ স্বীয় রবের ইবাদতের জন্য হৃদয়কে পরিপূর্ণ একাগ্র করার ক্ষেত্রে অধিক যত্নবান হওয়ার দ্বারাও স্বচ্ছলতা লাভ হয়।
হজরত আবু হুরাইরা (রা.) থেকে বর্ণিত, নবীজি (সা.) একটি হাদিসে কুদসিতে বলেন, আল্লাহ পাক বলেছেন, হে বনি আদম! তুমি আমার ইবাদতের জন্য নিজেকে ফারেগ কর। (তাহলে) আমি তোমার সিনাকে সম্পদশালী করে দেব এবং তোমার দরিদ্রতাকে দূর করে দেব। আর যদি তা না কর তাহলে তোমার হাত (অর্থহীন) কাজে ব্যস্ত করে দেব আর লোকের কাছে তোমাকে মুখাপেক্ষী করে রাখব। (জামে তিরমিজি, হাদিস : ২৪৬৬)
৫. ধারাবাহিকভাবে হজ ও ওমরা পালন: অর্থাৎ হজ সম্পাদনের পর ওমরার জন্য প্রস্তুতি গ্রহণ করা এবং ওমরা শেষ হলে পুনরায় হজের জন্য প্রস্তুত হতে থাকা রিজিক লাভের উপায়।