খেতে পারছে না, বাঁ হাত সম্পূর্ণ বেঁকে গেছে খালেদা জিয়ার

41

সমীকরণ প্রতিবেদন:
কারাবন্দি বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থা খুবই খারাপ উল্লেখ করে ‘উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে অন্য কোথাও নিতে হবে। এ হাসপাতালে সেটা সম্ভব নয়’- বলে মন্তব্য করেছেন সেলিমা ইসলাম। গতকাল শুক্রবার বিকেলে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বিএসএমএমইউ) চিকিৎসাধীন খালেদা জিয়ার সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে যান বোন সেলিমা ইসলাম। এ সময় তার সঙ্গে ছিলেন পরিবারের আরও কয়েকজন সদস্য। খালেদা জিয়ার সঙ্গে সাক্ষাৎ শেষে বেরিয়ে সেখানে উপস্থিত সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন তিনি। সেলিমা ইসলাম বলেন, ‘তার (খালেদা জিয়া) অবস্থা তো খুবই খারাপ। সে শুধু বমি করছে। গায়ে জ্বর আছে। ব্যথায় কাতরাচ্ছে, বাম হাতটা সম্পূর্ণ বেঁকে গেছে। তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য অন্য কোথাও নিতে হবে। এ হাসপাতালে এটা সম্ভব নয়।’ হাসপাতালের চিকিৎসকরা তাকে কেমন দেখছেন- সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নে তিনি বলেন, ‘তারা যে চিকিৎসা দিচ্ছে তাতে কোনো কাজ হচ্ছে না।’
পরিবারের পক্ষ থেকে সরকারের কাছে কোনো আবেদন করা হবে কি-না, জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘আমরা এখনও কোনো আবেদন করিনি। উনার যে অবস্থা, উনাকে মুক্তি দিয়ে উন্নত চিকিৎসার বন্দোবস্ত করতে হবে। শরীর তো খুবই খারাপ। সে তো ব্যথায় কাতরাচ্ছে, তার ডায়াবেটিস আজও ১৫-তে। এভাবে কতদিন চলবে? এ হাসপাতালে তো এক বছরের কাছাকাছি সময় রয়েছে, তার শরীরের কোনো উন্নতি হচ্ছে না বরং দিনদিন অবনতি হচ্ছে। এজন্য আমরা চাই তাকে উন্নত হাসপাতালে চিকিৎসা করাতে।’ খালেদা জিয়ার মুক্তির বিষয়ে সরকার আইনের কথা বলছেন, এ ক্ষেত্রে পরিবারের পক্ষ থেকে বিশেষ কোনো আবেদন করবে কি-না, জানতে চাইলে বোন সেলিমা ইসলাম বলেন, ‘আমরা ভাবছি,আমরা আবেদন করব। তবে এটা এখনও ঠিক করিনি। কারণ তার শরীরের যে অবস্থা, এ অবস্থায় বেশিদিন থাকলে তাকে জীবিত বাসায় নিয়ে যেতে পারব না।’ নির্বাচনের বিষয়ে কোনো বার্তা দিয়েছেন কি-না, এমন প্রশ্নে তিনি বলেন, ‘সে তো কথাই বলতে পারছে না। তবে দেশবাসীর কাছে দোয়া প্রার্থনা করেছে।’ কারাবন্দি খালেদা জিয়ার সঙ্গে সাক্ষাতের জন্য শুক্রবার বিকেল ৩টার পর বিএসএমএমইউ হাসপাতালে প্রবেশ করেন পরিবারের সদস্যরা। সঙ্গে নিয়ে যান বাসায় রান্না করা খাবার ও কিছু ফলমূল। পরিবারের বরাত দিয়ে বিএনপি চেয়ারপারসনের প্রেস উইং সদস্য শামসুদ্দিন দিদার জানান, খালেদা জিয়ার সেজো বোন সেলিমা ইসলাম, ছোট ভাই শামীম ইস্কান্দার, তার স্ত্রী কানিজ ফাতেমা, ও ছেলে অভিক ইস্কান্দার, সাইদ ইস্কান্দারের স্ত্রী নাসরিন ইস্কান্দার। আরাফাত রহমান কোকোর শাশুড়ি ফাতেমা রেজা হাসপাতলে আসলেও সাক্ষাৎকারের তালিকায় তার নাম না থাকায় প্রবেশ করতে দেয়া হয়নি।