কেন্দ্রীয় সভাপতি খোকন ও সম্পাদক শ্যামল

29

নান জল্পনা-কল্পনা শেষে জাতীয়তাবাদী ছাত্রদলের ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত
সমীকরণ প্রতিবেদন:
অবশেষে নান জল্পনা-কল্পনা শেষে জাতীয়তাবাদী ছাত্রদলের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক নির্বাচনের জন্য ভোটগ্রহণ শেষ হয়েছে। বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাসের শাহজাহানপুরের বাড়িতে গতকাল বুধবার রাত ৮ টা ৫০ মিনিটে এই ভোটগ্রহণ শুরু হয়। সারাদেশ থেকে আগত কাউন্সিলররা টানা সাড়ে তিন ঘণ্টা ব্যালেটের মাধ্যমে ভোট প্রদান করেন। মধ্যরাত সাড়ে ১২টার দিকে সম্পন্ন হয় ভোট গ্রহণ। এরপর শুরু হয় ভোট গণনা। ভোট গণনা শেষে ছাত্রদলের সভাপতি নির্বাচিত হয়েছেন খোকন এবং সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হয়েছেন শ্যামল। ছাত্রদলের কাউন্সিলে ১৮৬ ভোট পেয়ে ফজলুর রহমান খোকন সভাপতি নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী কাজী রওনুক ইসলাম শ্রাবণ পেয়েছেন ১৭৮ ভোট আর ১৩৯ ভোট পেয়ে সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হয়েছেন ইকবাল হোসেন শ্যামল, তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী জাকিরুল ইসলাম জাকির পেয়েছেন ৭৭ ভোট। ছাত্রদলের বিদায়ী দপ্তর সম্পাদক আব্দুস সাত্তার পাটোয়ারী সময়ের সমীকরণকে বলেন, যা শুনেছেন এটা সঠিক।
এর আগে ভোট শুরুর কিছুক্ষণ পরেই সেখানকার বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে দেয় বিদ্যুৎ বিভাগ। ফলে ঘুটঘুটে অন্ধকারের মধ্যে তীব্র গরমের মধ্যে কাউন্সিলররা ভোট দেন। চালু করা হয় জেনারেটর। অবশ্য ঘণ্টা খানেক পর আবারো বিদ্যুৎ সংযোগ দেয়। নির্বাচন পরিচালনা কমিটির আহ্বায়ক খায়রুল কবির খোকন বলেন, ‘নানা প্রতিবন্ধকতা অতিক্রম করে আমরা গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়ায় নেতা নির্বাচনের কাজটি করছি। বিরতি ছাড়াই টানা ভোট হয়েছে। আমরা গণনার কাজ শেষ করে ফলও ঘোষণা করব।’
এদিকে, গতকাল বিকেলে সংগঠনের নির্দেশনায় ছাত্রদলের কাউন্সিলররা ঢাকাসহ সারা দেশে থেকে নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় অফিসের সামনে জড়ো হন। পরে সন্ধ্যায় কাউন্সিলর ও প্রার্থীদের নিয়ে বৈঠকে বসেন কাউন্সিলের দায়িত্বপ্রাপ্ত নেতারা। স্কাইপের মাধ্যমে বৈঠকে অংশ নেন ছাত্রদলের অভিভাবক বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান। তবে একদিন নোটিশের কারণে দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চল থেকে সব কাউন্সিলর ঢাকায় আসতে পারেনি বলে জানা গেছে। এবারের কাউন্সিলে ছাত্রদলের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পদে মোট প্রার্থী ২৮ জন। এর মধ্যে সভাপতি পদে ৯ জন এবং সাধারণ সম্পাদক ১৯ জন।
ছাত্রদলের কাউন্সিলে সভাপতি পদের প্রার্থীরা হলেন কাজী রওনকুল ইসলাম শ্রাবণ, হাফিজুর রহমান, রিয়াদ মো. তানভীর রেজা রুবেল, মো. এরশাদ খান, মো. ফজলুর রহমান খোকন, এস এম সাজিদ হাসান বাবু, এ বি এম মাহমুদ আলম সরদার, মাহমুদুল হাসান বাপ্পি ও মোহাম্মদ মামুন বিল্লাহ। সাধারণ সম্পাদক পদে মো. আমিনুর রহমান আমিন, শাহ নাওয়াজ, জাকিরুল ইসলাম জাকির, মোহাম্মদ কারিমুল হাই (নাঈম), মাজেদুল ইসলাম রুমন, ডালিয়া রহমান, শেখ আবু তাহের, সাদিকুর রহমান, কেএম সাখাওয়াত হোসাইন, সিরাজুল ইসলাম, মো. ইকবাল হোসেন শ্যামল, মো. জুয়েল হাওলাদার (সাইফ মাহমুদ জুয়েল), মো. হাসান (তানজিল হাসান), মুন্সি আনিসুর রহমান, মো. মিজানুর রহমান শরিফ, শেখমো. মশিউর রহমান রনি, মোস্তাফিজুর রহমান, সোহেল রানা ও কাজী মাজহারুল ইসলাম।