কার্পাসডাঙ্গায় জমি নিয়ে দু’পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ : উভয়পক্ষের ৫জন আহত : পাল্টাপাল্টি মামলা : আটক: ১

278

কার্পাসডাঙ্গা অফিস: চুয়াডাঙ্গা জেলার দামুড়হুদা উপজেলার কার্পাসডাঙ্গায় ভিটা জমিকে কেন্দ্র করে মারামারিতে উভয়পক্ষের ৫ জন আহতের ঘটনা ঘটেছে।জানা গেছে, চাকুলিয়া গ্রামের লুৎফর রহমানের ছেলে সামসুল হক ও তার স্ত্রী মহিমা খাতুন ২০১৩ সালে কার্পাসডাঙ্গায় ৭ শতক জমি কেনে কদম আলীর ছেলে জালালের কাছে। সামসুলের কেনা জমিতে সামসুল গোয়াল ঘর নির্মান ও মেহগনি, নিম গাছ বোপন করে।সামসুলের কেনা ভিটা সংলগ্ন পাশের জমিতে জালালের আরেক ভাই হাকিম পাকা ঘর নির্মান করছে। গতকাল রবিবার সকাল আনুমানিক ৮ সময় ঘর সংলগ্ন কাটাতারের বেড়াকে কেন্দ্র করে তুচ্ছ ঘটনায় সামসুলের পরিবারের উপর নগ্ন হামলা চালায় হাকিম গ্রুপের হাকিম, ভাই গনি, আলাল মাষ্টার, আফতাব উদ্দিন, আ: গনির ছেলে স্বপন ও হাকিমের ভাইপো বেঞ্জু এমনটা জানিয়েছেন সামসুল। এতে সামসুল, স্ত্রী মহিমা ও ভাই মিলন মারাত্মক জখম হয়ে দামুড়হুদা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি হয়। এসময় সামসুলের ভিটা জমিতে থাকা প্রায় ৪০টি নিম ও মেহগনি গাছ কেটে দেয় হাকিম গ্রুপের লোকজন ও টিনের গোয়াল ঘর ভাংচুর করে। পরে বিকালে দ্বিতীয় দফায় সামসুলের ঘরের গেট ভেঙ্গে ভিতরে প্রবেশের চেষ্টাকালে দামুড়হুদা মডেল থানা পুলিশের হাতে আটক হয় গনির ছেলে স্বপন। এ বিষয়ে সামসুল বাদী হয়ে দামুড়হুদা মডেল থানায় একটি মামলা করেছে বলে জানা গেছে। এ বিষয়ে আ: হাকিম নিজেকে জমির মালিক দাবী করে বলেন গাছ আমাদের লাগানো। সামসুল চাকুলিয়া থেকে লোক ডেকে এনে আমার উপর অতর্কিত হামলা চালিয়ে আমাদের দুজনকে আহত করেছে। সামসুল আমাদের বিরুদ্ধে মিথ্যা অপ্রচারে লিপ্ত রয়েছে। তার পূর্ব পরিকল্পনা মাফিক আমাদের উপর হামলা করা হয়েছে। জমি আমাদের। হাকিম জানান আমরাও আদালতে মামলা করেছি।