করোনায় আক্রান্তের ঝুঁকিতে ডোনাল্ড ট্রাম্প

50

বিনোদন প্রতিবেদন
করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকিতে পড়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। কোয়ারেন্টাইনে থাকা কংগ্রেসের দুই রিপাবলিকান সদস্যের সঙ্গে হাত মেলানোর পরই এই আশঙ্কার কথা উঠে আসে। সিএনএনের প্রতিবেদনে বলা হয়, গত শনিবার ম্যারিল্যান্ড অঙ্গরাজ্যে ‘কনজারভেটিভ পলিটিক্যাল অ্যাকশন কনফারেন্স’ অংশ নেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট। তার সঙ্গে ছিলেন ভাইস প্রেসিডেন্ট মাইক পেন্সও। সেই কনফারেন্সে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত এক রোগী ছিলেন। তার সংস্পর্শে এসেছিলেন মার্কিন কংগ্রেসের দুই রিপাবলিকান সদস্য। এরপর তারা নিজেরাই কোয়ারেন্টাইনে থাকবেন বলে ঠিক করেন। কিন্তু আশঙ্কার কথা, ট্রাম্পের সঙ্গে বৈঠক করেছেন এবং হাত মিলিয়েছেন কোয়ারেন্টাইনে থাকার ঘোষণা দেয়া এই দুই রিপাবলিকান নেতা। এই দুই রিপাবলিকান কংগ্রেসম্যান হলেন- ডগ কলিন্স ও ম্যাট গেইটজ। এর মধ্যে ডগ কলিন্সের সঙ্গে ট্রাম্পের সাক্ষাৎ হয়েছে এবং তারা হাতও মিলিয়েছেন। এছাড়া ম্যাট গেইটজ গত সোমবার ট্রাম্পের সঙ্গে লিমুজিনে চড়ে সানশাইন স্টেটে সফর করেছেন। তবে হোয়াইট হাউসের মুখপাত্র স্টেফানি গ্রিশাম জানিয়েছেন, মার্কিন প্রেসিডেন্টের করোনা পরীক্ষার কোনো প্রয়োজন নেই। তিনি করোনায় আক্রান্ত নন। প্রেসিডেন্ট সুস্থ্য আছেন। সবসময় তিনি চিকিৎসকের পর্যবেক্ষণে রয়েছেন। হোয়াইট হাউসের বরাত দিয়ে সিএনএন জানায়, এ ঘটনার পর প্রেসিডেন্টসহ হোয়াইট হাউসের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের জন্য সতর্কতা মূলক ব্যবস্থা নিয়েছে মার্কিন সিক্রেট সার্ভিস। আমেরিকান কনজারভেটিভ ইউনিয়ন জানায়, করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত ওই ব্যক্তিকে নিউ জার্সির একটি হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। সেখানে তাকে পৃথক করে রাখা হয়েছে। সেই সঙ্গে তার চিকিৎসা চলছে। এদিকে ট্রাম্প সিএনএনকে বলেন, ‘আমি এতে শঙ্কিত নই। মোটেও উদ্বিগ্ন নই। আমরা অনেক ভালো আছি। ’ তবে ট্রাম্প সর্তক করে এও বলেছেন, যে কোনো আমেরিকান করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হতে পারেন। ট্রাম্পের স্বাস্থ্যের বিষয়টি উদ্বেগজনক ভাবেই দেখা হচ্ছে। কারণ করোনায় সংক্রমিত আমেরিকানদের সংখ্যা এরইমধ্যে ৭ হাজারের উপর দাঁড়িয়েছে। সেখানে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ২১ জনে দাঁড়িয়েছে।