এমন যে হবে কেউ ভাবেনি আগে

203

নিজস্ব প্রতিবেদক:
চুয়াডাঙ্গা পৌরসভা নির্বাচনে আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়ন পরিবর্তন করা হবে সে কথা কেউই আগে ভাবতে পারেনি। দলীয় মনোনয়ন দেওয়ার পর মনোনয়নপত্র জমাদানের ঠিক শেষ সময়ে হঠাৎ করে দল এমন সিদ্ধান্ত নিবে এ রকম ঘটনারও নজির নেই আওয়ামী লীগের নিকটতম ইতিহাসে। কেন এমন পরিবর্তন হলো, সে প্রশ্নের উত্তরের খোঁজে বিশ্বস্ত সূত্র থেকে জানা গেছে, আওয়ামী লীগের সভানেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গত নির্বাচনে দলের বিপক্ষে যেয়ে বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে যাঁরা নির্বাচন করেছেন, তাঁদেরকে দলীয় মনোনয়ন দিবেন না, এমন সিদ্ধান্তে অটল ছিলেন প্রথম থেকেই। সে হিসেবেই ওবায়দুর রহমান চৌধুরীসহ ২৫টি পৌরসভার মধ্যে ৯ জন মেয়রকে দলীয় মনোনয়ন দেওয়া হয়নি।
এদিকে, ২৫টি পৌরসভার মধ্যে যারা মনোনয়ন পেয়েছেন, তাঁদের মধ্যে কয়েকজন পৌরসভা নির্বাচনে নয়, কিন্তু উপজেলা বা অন্য নির্বাচনে বিদ্রোহী প্রার্থী ছিলেন, এমন খবর দলের কেন্দ্রীয় নীতি-নির্ধারকদের কাছে পৌঁছায়। বিষয়টি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কানে পৌঁছালে তিনি যাচাই-বাছাই করার নির্দেশনা দেন। তখন চুয়াডাঙ্গা পৌরসভার দলীয় মনোনয়ন পাওয়া প্রার্থী রিয়াজুল ইসলাম জোয়ার্দ্দার টোটনের উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে বিদ্রোহী হিসেবে নির্বাচন করাসহ দেশের আরও দুটি পৌরসভায় দলীয় মনোনয়ন দেওয়া হয়েছে অথচ তাঁরা আগে কোনো না কোনো নির্বাচনে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী ছিলেন, এমন তথ্য পাওয়া যায়। বিষয়টি আমলে নিয়ে আওয়ামী লীগের স্থানীয় সরকার মনোনয়ন বোর্ডের প্রধান ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা চুয়াডাঙ্গা পৌরসভাসহ ওই দুটি পৌরসভারও প্রার্থী পরিবর্তন করে নতুন প্রার্থী দেন। একই সাথে নতুন প্রার্থীর মনোনয়নপত্র গ্রহণ করার জন্য নির্বাচন কমিশনকে চিঠিও দেন তিনি। মনোনয়ন পরিবর্তনের এই নাটকীয় ঘটনা গতকাল দিনভরই টক অব দ্য টাউন।