একইদিনে দু’জনের মৃত্যু : ১১ জন হাসপাতালে

74

জীবননগর ঘোষনগরে অদৃশ্যে রোগ আতঙ্কে এলাকাবাসী
জীবননগর অফিস:
জীবননগরে মেয়ের মৃত্যুর একদিন পর মায়ের মৃত্যু হয়েছে। এছাড়া অদৃশ্যে রোগ আতঙ্কে ভুগছে গোটা এলাকাবাসী। গতকাল সোমবার জীবননগর উপজেলার বাঁকা ইউনিয়নের ঘোষনগর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। একই দিনে একই গ্রামের দুইজনের মৃত্যুসহ অসুস্থ অবস্থায় ১১ জন জীবননগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি হয়।
এদিকে, মেয়ের শোকে মৃত্যুবরণ করেন ঘোষনগার গ্রামের হারেজ আলীর স্ত্রী মাশিয়া খাতুন (৫৫)এবং ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করেন একই গ্রামের শরিফ উদ্দিনের ছেলে রকি (১১)। এছাড়া অসুস্থ অবস্থায় জীবননগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি হয় ঘোষনগর গ্রামের রুস্তম আলীর স্ত্রী শাপলা (২৫), আ. রহিমের ছেলে ডালিম (১৮), আলতাফের ছেলে আজিজুল হোসেন (১৮), রমিজ মালিতার স্ত্রী মহনা (২২), মাসুদের স্ত্রী জুনিয়া (২২), হারেজের মেয়ে লাকী (২৫), শহিদুল ইসলামের স্ত্রী সুর্য খাতুন (৪৫), সমিজ মালিতার স্ত্রী তাহমিনা (২৭), জাফর আলীর স্ত্রী নিরলা খাতুন (২০) এবং আহার আলীর স্ত্রী সুকতারা (৩৩)।
জীবননগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মেডিকেল অফিসার ডা. রোকনুজ্জামান রুবেল বলেন, ঘোষনগর গ্রামের যে সমস্ত রোগী ভর্তি হয়েছিলো এর মধ্যে রকি ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হয় এবং তার অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় তাকে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে রেফার্ড করা হয়। আমি শুনেছি সেখানে তার মৃত্যু হয়েছে। তাছাড়া আর যে সমস্ত রোগী এখানে ভর্তি আছে তাদের সবার অবস্থা আশঙ্কমুক্ত।
এদিকে, একই গ্রামে পর পর দুইজনের মৃত্যু হওয়ায় সকলের মাঝে একটি আতঙ্ক বিরাজ করছে। তবে অনেকে বলছে এটা আতঙ্কের কোন বিষয় নয়, যেহেতু এখন গরমের সময় এ কারনে এ সমস্যা দেখা দিতে পারে। এদিকে অসুস্থদের দেখতে হাসপাতালে ছুটে যান জীবননগর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আবু মো. আ. লতিফ অমল।