এআর ট্রাভেলস এর ৮ গাড়ির মালিক উধাও ইসলামী ব্যাংক কর্তৃপক্ষ ও সংশ্লিষ্ট কর্মচারীরা বিপাকে

476

ARদর্শনা অফিস: দর্শনা-ঢাকা রুটে চলাচলকারী এআর ট্রাভেলসের মালিক বিকাশ গোস্বামী হঠাৎ করে উধাও হয়ে গেছেন। বিপাকে পড়েছে ব্যাংক কর্তৃপক্ষ ও এআর ট্রাভেলস পরিবহনের সাথে সংশ্লিষ্ট প্রায় ৮০/৯০ জন কর্মচারী। জানাগেছে, চুয়াডাঙ্গা জেলার দর্শনা জীবননগর হয়ে ঢাকা রুটে দীর্ঘদিন ধরে এআর ট্রাভেলস নামের ৮টি যাত্রীবাহী পরিবহন কার্পাসডাঙ্গা-টু-দর্শনা রুটে চলাচল করে আসছিল। হঠাৎ করে গাড়ি গুলি চলতে চলতে মালিক বিকাশ গোস্বামী এই রোডে ব্যাবসা নেই বলে একটা দুটা করে গাড়ি তুলে নিতে থাকে এবং গোপনে গোপনে গাড়ি গুলি বিক্রি করে দেয়। ফলে এ রুটে যতগুলি কাউন্টার আছে সে সকল কাউন্টার মালিকরা ও পরিবহনের সাথে সংশ্লিষ্ট সকল কর্মচারীরা গোপনে খবর নিয়ে দেখে ৮টি গাড়ির মধ্যে ৭টি গাড়ি মালিক পক্ষ বিক্রি করে দিয়েছে। বাকি একটি গাড়ি দর্শনা কাউন্টারের সামনে থেকে দর্শনা- ঢাকা যাওয়া আসা করে। এমতাবস্থায় এআর পরিবহনের সাথে জড়িত সকল কর্মচারীরা ও কাউন্টার মালিকরা একত্রিত হয়ে তাদের জামানতের টাকা ফেরত পাওয়ার আসায় দর্শনা মোটরশ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি মোতালেবকে সাথে নিয়ে দর্শনা তদন্ত কেন্দ্রে অভিযোগ করে। অভিযোগে বলা হয় কাউন্টার মালিকরা ও পরিবহনের সাথে সংশ্লিষ্ট সকল কর্মচারীরা জামানত স্বরুপ ও গাড়ির খরচ বাবদ ২৫ লাখ ৭৪ হাজার  টাকা পাওনা হয়েছে বলে অভিযোগ করে। এদিকে ইসলামী ব্যাংক ঢাকা শ্যামলী শাখার দুই জন অফিসার রফিক ও শাহজালাল একই পরিবহনের মালিকের নামে অভিযোগ করে। ১কোটি ২০ লক্ষ টাকা ব্যাংক থেকে লোন তুলে কয়েক লক্ষ টাকা মাত্র পরিশোধ করে। বাকি টাকা না দেওয়ায় ঢাকার মিরপুর থানায় তার নামে মামলা করেছে বলে জানা গেছে। এদিকে মালিক বিকাশ গোস্বামী কোন খোজ না পেয়ে দর্শনা রুটে চলাচলকারী একটি মাত্র গাড়ী আটক করে কাউন্টার মালিকরা ও পরিবহনের সাথে সংশ্লিষ্ট সকল কর্মচারীরা। দর্শনা পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের হেফাজতে এআরের ট্রাভেলসের গাড়ীটি আছে বলে জানা গেছে।