উপসর্গে মৃত ডিঙ্গেদহের রবিউলের রিপোার্ট পজিটিভ

63

চুয়াডাঙ্গায় ১৭, মেহেরপুরে ৫, ঝিনাইদহে ২০ ও কুষ্টিয়ায় আরও ৪ জনের করোনা শনাক্ত
নিজস্ব প্রতিবেদক:
কুষ্টিয়া মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পিসিআর ল্যাবে গতকাল ২৪১টি নমুনা পরীক্ষা করে চুয়াডাঙ্গায় নতুন ১৭ জন, মেহেরপুরে ৬ জন, ঝিনাইদহের ২০ জন, কুষ্টিয়ায় ৪ জনসহ মোট ৪৭ জনের শরীরে করোনা শনাক্ত হয়েছে।
চুয়াডাঙ্গা:
চুয়াডাঙ্গায় নতুন করে ১৭ জনের শরীরে করোনা শনাক্ত হয়েছে। গতকাল শনিবার রাত সাড়ে ৯টায় জেলা সিভিল সার্জন অফিস এ তথ্য নিশ্চিত করে। এ নিয়ে জেলায় মোট করোনা শনাক্তের সংখ্যা দাঁড়াল ১ হাজার ২৪২ জনে। এদিকে, করোনা উপসর্গ নিয়ে মৃত ডিঙ্গেদহের রবিউল ইসলামের রিপোর্ট পজিটিভ এসেছে। এ নিয়ে জেলায় মোট মৃত্যুর সংখ্যা দাঁড়াল ৩০ জনে। গতকাল নতুন আক্রান্ত ১৭ জনের মধ্যে চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলার ১২ জন, আলমডাঙ্গা উপজেলার ১ জন ও দামুড়হুদা উপজেলর ৪ জন রয়েছেন। নতুন আক্রান্ত ১৭ জনের মধ্যে পুরুষ ১০ জন ও নারী ৭ জন। আক্রান্তদের বয়স ১৭ থেকে ৭০ বছর পর্যন্ত।
এদিকে, করোনা আক্রান্ত সন্দেহে জেলা স্বাস্থ্য বিভাগ গতকাল ৪৭টি নমুনা সংগ্রহ করেছে। চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলা থেকে ৩০টি, আলমডাঙ্গা উপজেলা থেকে ৮টি ও দামুড়হুদা উপজেলা থেকে ৯টি নমুনাসহ সংগৃহীত ৪৭টি নমুনা পরীক্ষার জন্য কুষ্টিয়া মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করে। জানা যায়, গতকাল শুক্রবার কুষ্টিয়া মেডিকেল কলেজ পিসিআর ল্যাব থেকে জেলা সিভিল সার্জন অফিসে ২৭ আগস্ট বৃহস্পতিবার করোনা আক্রান্ত সন্দেহে প্রেরিত ৪৪টি নমুনার ফলাফল এসে পৌঁছায়। এর মধ্যে ১৭ জনের নমুনার ফলাফল পজিটিভ ও বাকি ২৭ জনের নমুনার ফলাফল নেগেটিভ আসে।
চুয়াডাঙ্গা সিভিল সার্জন অফিস জানায়, ২১ আগস্ট রাতে করোনা উপসর্গ নিয়ে মারা যান সদর উপজেলার ডিঙ্গেদহে রবিউল ইসলাম নামের এক ব্যক্তি। মৃত্যুর পরদিন ২২ আগস্ট সকালে মৃতদেহ থেকে নমুনা সংগ্রহ করে করোনা পরীক্ষার জন্য কুষ্টিয়া মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্ররণ করে জেলা সিভিল সার্জন অফিস। গতকাল সন্ধ্যায় উক্ত নমুনার ফলাফল পজিটিভ আসে। এ নিয়ে জেলায় মোট মৃতুর সংখ্যা দাঁড়াল ৩০ জনে। এর আগে ২৭ আগস্ট রাতে ঢাকা চিকিৎসাধীন অবস্থায় আলমডাঙ্গা উপজেলার আশাবুল হক ঠাণ্ডু নামের এক বৃদ্ধের মৃত্যু হয়।
এদিকে, কুষ্টিয়া মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পিসিআর ল্যাবের তথ্যে জানা যায়, গতকাল (২৯ আগস্ট) ল্যাবে চুয়াডাঙ্গার ফলোআপ নমুনাসহ ৬১টি, মেহেরপুরের ২৬টি, ঝিনাইদহের ৮০টি, কুষ্টিয়ার ৭৪টি নমুনাসহ ২৪১টি নমুনা পরীক্ষা করে চুয়াডাঙ্গায় নতুন ১৭ জন, মেহেরপুরে ৬ জন, ঝিনাইদহের ২০ জন, কুষ্টিয়ায় ৪ জনসহ মোট ৪৭ জনের শরীরে করোনা শনাক্ত হয়েছে। চুয়াডাঙ্গা জেলার ৮ জন ও ঝিনাইদহ জেলার ৩ জনের ফলোআপ রিপোর্ট পজিটিভ। এছাড়া বাকিগুলোর ফলাফল নেগেটিভ। গতকাল জেলায় নতুন ৩২ জন সুস্থ হয়েছেন। সদর উপজেলার হোম আইসোলেশন থেকে নতুন ১০ জন, আলমডাঙ্গা উপজেলা হোম আইসোলেশন থেকে ৪ জন, দামুড়হুদা উপজেলা হোম আইসোলেশন থেকে ৬ জন ও জীবননগর উপজেলা হোম আইসোলেশন থেকে ১২ জন সুস্থ হয়েছে। এ নিয়ে জেলায় মোট সুস্থ হয়েছে ৭৪৪ জন।
চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসা কর্মকর্তা ডা. শামীম কবির জানান, জেলায় নতুন ১৭ জনের শরীরে করোনা শনাক্ত হয়েছে। আক্রান্তদের মধ্যে চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলার ১২ জন, আলমডাঙ্গা উপজেলার ১ জন ও দামুড়হুদা উপজেলর ৪ জন রয়েছে। নতুন আক্রান্ত ১৭ জনের সার্বিক খোজ খবর নিয়ে তাঁদের হোম আইসোলেশন ও প্রাতিষ্ঠানিক আইসোলেশনের ব্যবস্থায় নেয়া হবে।
২৯ আগস্ট শনিবার চুয়াডাঙ্গা সিভিল সার্জন অফিসের সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী জেলা থেকে এ পর্যন্ত মোট নমুনা সংগ্রহ ৪ হাজার ৮৮০টি, প্রাপ্ত ফলাফল ৪ হাজার ৬৮৫টি, পজিটিভ ১ হাজার ২৪২ জন, নেগেটিভ ৩ হাজার ৪৪২ জন। ফলাফল পেতে বাকি আছে ১৯৫টি নমুনার। গতকাল সদর উপজেলার হোম আইসোলেশন থেকে নতুন ১০ জন, আলমডাঙ্গা উপজেলা হোম আইসোলেশন থেকে ৪ জন, দামুড়হুদা উপজেলা হোম আইসোলেশন থেকে ৬ জন ও জীবননগর উপজেলা হোম আইসোলেশন থেকে ১২ জন সুস্থ হয়েছে। এ নিয়ে জেলায় মোট সুস্থ হয়েছে ৭৪৪ জন ও মৃত্যু ৩০। জেলায় গতকাল হোম আইসোলেশনে ছিলেন ৪২৮ জন ও প্রাতিষ্ঠানিক আইসোলেশনে ছিলেন ৩৩ জন।
মেহেরপুর:
মেহেরপুর জেলায় নতুন করে পাঁচজন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। মেহেরপুরে মোট কোভিড-১৯ আক্রান্ত বর্তমানে ১৪৬ জন। এ নিয়ে মেহেরপুর জেলায় ৩ হাজার ৩৯৯ জনের মধ্যে বর্তমানে ১৪৬টি পজেটিভ। ৩১৮ জন সুস্থ হয়েছেন। মৃত্যুবরণ করেছেন ১১ জন। গতকাল শনিবার রাতে মেহেরপুর সিভিল সার্জন ডাক্তার নাসির উদ্দিন ৫ জনের করোনা পজিটিভ হওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। জানা গেছে, কুষ্টিয়া মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে যে নমুনা পরীক্ষার জন্য পাঠানো হয়েছিল, তার মধ্যে ২৬ জনের পরীক্ষার ফলাফল এসেছে। সেই পরীক্ষার ফলাফলে মেহেরপুরের ৫ জনের শরীরে করোনার জীবাণু রয়েছে। যে ৫ জন নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেস, তাদের মধ্যে গাংনী উপজেলার সাহাতন চৌগাছা, আইয়ুব আলী সহড়াবাড়িয়া, হোসনে আরা গাংনী বাজার পাড়া, ইদ্রিস আলী চৌগাছা এবং অন্যজন মুজিবনগর উপজেলার মানিকনগর গ্রামের প্রিয়া (১৯)।