ইউএনওর চেষ্টায় প্রাণ বাঁচল সাপে কাটা নারীর

48

জীবননগর অফিস:
জীবননগরে সাপে কাটা হতদরিদ্র এক নারীর চিকিৎসার দায়িত্ব নিলেন জীবননগর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. সিরাজুল ইসলাম। স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, ‘জমি আছে ঘর নাই’ প্রকল্পের মাধ্যমে অসহায় হতদরিদ্র ব্যক্তিদের মধ্যে সরকারিভাবে ঘর বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। এরই ধারাবাহিকতায় গতকাল বৃহস্পতিবার উপজেলার খয়েরহুদা গ্রামের অসহায় হতদরিদ্র নাজমা খাতুনকে (২৩) সরকারিভাবে একটি ঘর বরাদ্দ দেওয়া হয়। ঘরটি পেয়ে অসহায় নাজমা খাতুন ছোট দুটি সন্তান নিয়ে অনেক আনন্দে বসবাস শুরু করেন। কিন্তু দুপুর ১২টার দিকেই নিজের জরাজীর্ণ পলিথিন দিয়ে মোড়ানো ছাউনি আর ঘরের মেঝের মাটি সরাতে যেয়ে ঘটে বিপত্তি। নিজের ঘরে থাকা কালকেওটা সাপ অসহায় নাজমাকে কামড় দেয়। এ ঘটনার পর তাঁকে চিকিৎসা করাতে নিয়ে যাওয়ার মতো লোক ছিল না। পরে এলাকার ঘর নির্মাণশ্রমিকেরা বিষয়টি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সিরাজুল ইসলামকে জানালে তিনি ওই মিস্ত্রিদের নাজমাকে দ্রুত চিকিৎসার জন্য জীবননগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসতে বলেন এবং হাসপাতালে নিজে যেয়ে অ্যাম্বুলেন্স ঠিক করে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসাপাতালে নিয়ে যাওয়ার ব্যবস্থা করেন। সেই সঙ্গে তাঁর চিকিৎসার সব দায়িত্ব গ্রহণ করেন ইউএনও।