আলমডাঙ্গায় তিন দিনমজুরসহ সারা দেশে বজ্রপাতে নিহত ১৫

129

সমীকরণ প্রতিবেদন:
আলমডাঙ্গায় তিনজন দিনমজুরসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে বজ্রপাতে ১৫ জন নিহত হয়েছেন। গত শুক্রবার সন্ধ্যা থেকে গতকাল বিকেল পর্যন্ত এ বজ্রপাতের ঘটনা ঘটে। নিহত ব্যক্তিদের মধ্যে পাবনায় বাবা-দুই ছেলেসহ ৪, চুয়াডাঙ্গা ও ময়মনসিংহে ৩ জন করে, সুনামগঞ্জে ২, শেরপুর, মাগুরা ও রাজশাহীর গোদাগাড়ীতে একজন করে রয়েছেন।
আলমডাঙ্গা:
আলমডাঙ্গায় বজ্রপাতে তিনজন দিনমজুরের মৃত্যু হয়েছে। গুরুতর আহত হয়েছেন আরও চারজন। গতকাল শনিবার বিকেলে আলমডাঙ্গা উপজেলার খোরদ গ্রামে এ বজ্রপাতের ঘটনা ঘটে। নিহত ব্যক্তিরা হলেন মেহেরপুর সদর উপজেলার কলাইডাঙ্গা গ্রামের মকবুল হোসেনের ছেলে আলামিন (৩০), গোলাম রসুলের ছেলে হুদা (৩২) ও একই গ্রামের বরকত আলীর ছেলে হামিদুল ইসলাম (৩০)।
পুলিশ ও স্থানীয় লোকজন জানান, আলমডাঙ্গা উপজেলার খোরদ গ্রামে সাত-আটজন দিনমজুর গতকাল শনিবার সকাল থেকেই ট্রাকে কলা বোঝাইয়ের কাজ করছিলেন। দুপুরের পর ওই এলাকায় শুরু হয় মুষলধারে বৃষ্টিসহ বজ্রপাত। বৃষ্টি এড়াতে ওই দিনমজুরেরা ট্রাকের কাছেই অবস্থান করছিলেন। এ সময় বজ্রপাতের ঘটনা ঘটলে গুরুতর আহত হন সাতজন দিনমজুর। তাঁদের মধ্যে তিনজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক হলে স্থানীয় লোকজন তাঁদের উদ্ধার করে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে নিয়ে যান। পরে সেখানে জরুরি বিভাগের দায়িত্বরত চিকিৎসক ডা. সোনিয়া আহমেদ তাঁদের তিনজনকেই মৃত বলে ঘোষণা করেন। একই ঘটনায় আহত চারজন প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়ে বাড়ি ফিরেছেন। পরে রাত ১০টায় গ্রামের কবরস্থানে নিহত ব্যক্তিদের লাশ দাফন করা হয়।
আলমডাঙ্গা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আসাদুজ্জামান মুন্সি ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, ভারী বৃষ্টি ও বজ্রবৃষ্টির মধ্যে অসতর্কভাবে কাজ করার সময় প্রাকৃতিক দুর্যোগে এ হতাহতের ঘটনা ঘটেছে।
এ দিকে খবর পেয়ে মেহেরপুর সদরের উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মাসুদুল আলম ও উপজেলা চেয়ারম্যান অ্যাড. ইয়ারুল ইসলাম শোকসন্তপ্ত পরিবারকে দেখতে আসেন এবং সমবেদনা জানান।