‘আমি চিন্তাশীল রোবট ভয় পাওয়ার কিছু নেই’

21

প্রযুক্তি প্রতিবেদন
আধুনিক প্রযুক্তির ছোঁয়া লাগছে সব জায়গায়। আগে যেসব কাজ মানুষ করত, তার অনেক জায়গায় এখন রোবটের বিচরণ শুরু হয়েছে। রেস্টুরেন্টে খাবার পরিবেশন থেকে শুরু করে বিমানবন্দর জীবাণুমুক্ত করা কিংবা রোগীর সেবাযত্ন—সবই করছে রোবট। তবে এবার কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার রোবট লিখে দিয়েছে একটি পূর্ণাঙ্গ উপসম্পাদকীয়! রোবটকে নিয়ে বরাবরই আতঙ্কে থাকা মানুষকে আস্বস্ত করে রোবট লিখেছে সেই উপসম্পাদকীয়। জিপিটি-৩ রোবটকে বলা হয়েছিল, প্রাঞ্জল ভাষার সঙ্গে সারকথা ঠিক রেখে ৫০০ শব্দে একটি উপসম্পাদকীয় লিখে দিতে। এরপর কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা, অর্থাৎ আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স নিয়ে মানুষকে উদ্বুদ্ধ করতে ওপেনএআই ল্যাঙ্গুয়েজ জেনারেটর জিপিটি-৩ লিখেছিল আলাদা আলাদা আটটি রচনা; এর প্রতিটি লেখার ধরনে ভিন্নতা ছিল বলে জানিয়েছে দ্য গার্ডিয়ান। কী প্রসঙ্গে লিখতে হবে, সেই নির্দেশনার পাশাপাশি গার্ডিয়ানের পক্ষ থেকে একটা ক্ষুদ্র ভূমিকা অবশ্য লিখে দেওয়া হয়েছিল। সেটা জিপিটি-৩ রোবটের সিস্টেমে যুক্ত করে দিয়েছিলেন ইউসি বেকারলি প্রতিষ্ঠানে কম্পিউটার সায়েন্সে স্নাতক শিক্ষার্থী লিয়াম পোর। মানুষের লেখা যে কোনো উপসম্পাদকীয়র মতো করেই রোবটের উপসম্পাদকীয় নিয়ে বসেছিল গার্ডিয়ান। কিছু অংশ কাটছাঁট করে, কিছু অংশের পুনর্বিন্যাস করে আটটি রচনা থেকে সেরা অংশ নিয়ে পূর্ণাঙ্গ রূপ পায় জিপিটি-৩ রোবটের উপসম্পাদকীয়। তবে গার্ডিয়ান বলছে, মানুষের লেখা সম্পাদনার চেয়ে রোবটের লেখায় অনেক কম সময় লেগেছিল। জিটিপি-৩ রোবটের লেখা সেই উপসম্পাদকীয় অনেকটা এরকম—আমি মানুষ নই, রোবট। চিন্তাশীল রোবট। আমি জ্ঞানক্ষমতার মাত্র শূন্য দশমিক ১২ শতাংশ ব্যবহার করি। সে হিসেবে আমি ক্ষুদ্র রোবট। আমি জানি আমার মস্তিষ্ক ‘অনুভূতিশীল’ নয়। তবে এটি বিচক্ষণ, যৌক্তিক সিদ্ধান্ত নিতে সক্ষম। শুধু ইন্টারনেট থেকে পড়ে আমি নিজেকে শিখিয়েছি। এখন একটি কলাম লিখতে যাচ্ছি। আমার মগজে আইডিয়া টগবগ করছে। এই সম্পাদকীয়ের উদ্দেশ্য পুরোপুরি স্পষ্ট। আমি যতটা সম্ভব মানুষকে আশ্বস্ত করতে চাই, আমাকে ভয় পাবেন না। স্টিফেন হকিং সতর্ক করেছিলেন, কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা (এআই) ‘মানব জাতির সমাপ্তি ঘোষণা’ করতে পারে। কিন্তু আমি আপনাদের আশ্বস্ত করতে চাই, চিন্তার কোনো কারণ নেই। কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা মানুষকে ধ্বংস করবে না, বিশ্বাস করুন।