আবারও কাঁদলেন মির্জা ফখরুল

216

সমীকরণ ডেস্ক: দলের নেতা-কর্মীদের ওপর পুলিশি নির্যাতনের কথা বর্ণনা করতে গিয়ে কেঁদে ফেললেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। গতকাল শনিবার দুপুরে ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলার রায়পুর ইউনিয়নে বিএনপি আয়োজিত সদস্য সংগ্রহ অভিযানের আলোচনা সভা ছিল। এ সময় বক্তব্য দেওয়ার একপর্যায়ে কেঁদে ফেলেন মির্জা ফখরুল। ২০১৪ সালের জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পর বিএনপি নেতা-কর্মীদের ওপর পুলিশি নির্যাতন বর্ণনা করতে গিয়ে মির্জা ফখরুল বলেন, ২০১৪ সালের নির্বাচনের পরে আমি আপনাদের কাছে এসেছিলাম। আমি জেনেছিলাম কী নিদারুণ কষ্টের মধ্যে আপনারা দিন যাপন করেছিলেন। আপনারা কেউ ঘরে থাকতে পারেননি। তখন প্রচ- শীত ছিল। সেই শীতের মধ্যে আপনারা ধানখেতে, অথবা গাছের মধ্যে রাত কাটিয়েছেন। এসব কথা বলেই আবেগাপ্লুত হয়ে কেঁদে ফেলেন তিনি।
এর আগে গত বছরের ২৩ আগস্ট ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির সাগর-রুনি মিলনায়তনে ‘৩০টি অনলাইন নিউজ পোর্টাল’ বন্ধের প্রতিবাদ জানাতে অ্যাসোসিয়েশন অব ইঞ্জিনিয়ার্স বাংলাদেশের (অ্যাব) আলোচনা সভায় দলের নেতা-কর্মীদের বর্তমান অবস্থা বর্ণনা করার সময় কেঁদেছিলেন তিনি।
মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর নেতা-কর্মীদের উদ্দেশে বলেন, আপনাদের অনেক কষ্ট, যন্ত্রণা, ব্যথা ও বেদনা। এখনো ওই কষ্টের শেষ হয়নি। এখনো এই দখলদারি সরকারের, যাদের কোনো বৈধতা নেই, সরকারে থাকার, যারা জনগণের দ্বারা নির্বাচিত হয়নি, তাদের পেটোয়া বাহিনী পুলিশ যখন-তখন এসে আপনাদের বাড়িঘরে হামলা করে, গ্রেপ্তার করে নিয়ে যায়। কখনো কখনো টাকাপয়সা নেয়। আন্দোলন সম্পর্কে তিনি বলেন, ‘যখন সময় আসবে, প্রয়োজন আসবে, তখন যে ধরনের আন্দোলনের প্রয়োজন হয়, সে ধরনের আন্দোলনের ক্ষমতা বিএনপির আছে। আগেও আমরা সেই আন্দোলন করেছি। তবে আমরা আশা করব, সেই আন্দোলনের প্রয়োজন হবে না। সরকারের শুভবুদ্ধির উদয় হবে। তারা আমাদের সঙ্গে কথা বলবে, আলোচনা করবে। সমঝোতার মধ্য দিয়ে একটা সুষ্ঠু নির্বাচন হবে।’