আন্তজেলা ডাকাত দলের শীর্ষ দুই সদস্য আটক

405

জীবননগর মিনাজপুরে মধ্যরাতে অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে ডাকাতির ঘটনা
জীবননগর অফিস:
জীবননগরে আন্তজেলা ডাকাত দলের দুই শীর্ষ সদস্যকে আটক করেছে পুলিশ। গত বুধবার মধ্যরাতে ঝিনাইদহের মহশেপুর উপজেলায় পৃথক স্থান থেকে তাঁদের আটক করা হয়। আটক হওয়া ডাকাত সদস্যরা হলেন মাদারীপুর জেলার কালকিনী উপজেলার আব্দুল আজিজ সরদারের ছেলে খবির সরদার (৫৫) ও মহেশপুর উপজেলার পুরন্দরপুর গ্রামের মৃত নজরুল ইসলামের ছেলে জনি শেখ (৩১)। এ সময় তাঁদের নিকট থেকে ডাকাতি করা অর্থের ভাগের ৩ হাজার টাকা উদ্ধার করে পুলিশ। গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুর ১২টার দিকে জীবননগর থানায় উপস্থিত হয়ে প্রেস ব্রিফিং করে এ তথ্য নিশ্চিত করেন সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার (দামুড়হুদা ও জীবননগর সার্কেল) আবু রাসেল।
জানা যায়, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে গত বুধবার গভীর রাতে চুয়াডাঙ্গা পুলিশ সুপার জাহিদুল ইসলামের নির্দেশে সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার আবু রাসেল ও জীবননগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সাইফুল ইসলাম ফোর্স নিয়ে ঝিনাইদহ জেলার মহেশপুর উপজেলার গোয়ালহুদা গ্রামের হানিফ ড্রাইভারের বাড়িতে অভিযান চালান। এ সময় আন্তজেলা ডাকাত দলের শীর্ষ সদস্য খবির সরদারকে আটক করেন তাঁরা। পরে একই উপজেলার বাথানগাছী গ্রামে অভিযান চালিয়ে শ্বশুর বাড়ি থেকে আন্তজেলা ডাকাত দলের আরেক সদস্য জনি শেখকে আটক করা হয়।
এ বিষয়ে গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরে জীবননগর থানায় পুলিশের পক্ষ থেকে প্রেস ব্রিফিং করে বিস্তারিত জানানো হয়। প্রেস ব্রিফিংয়ে সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার আবু রাসেল বলেন, অপরাধী যত বড় শক্তিশালী হোক না কেন, তাদের কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না। এ ধরনের ঘটনার সঙ্গে যারা আরও জড়িত আছে, তাদেরকেও খুব শিগগিরই আটক করা হবে। প্রেস ব্রিফিংকালে উপস্থিত ছিলেন জীবননগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সাইফুল ইসলাম, জীবননগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি, তদন্ত) ফেরদৌস ওয়াহিদ প্রমুখ।
উল্লেখ্য, গত ২৭ জুন জীবননগর উপজেলার বাঁকা ইউনিয়নের মিনাজপুর গ্রামের হামিদুজ্জামান টিটুর বাড়িতে ৬-৭ জনের একটি ডাকাত দল বাড়ির সীমানা প্রাচীর টপকিয়ে ঘরের তালা ভেঙে ভেতরে প্রবেশ করে ধারালো অস্ত্রের ভয় দেখিয়ে ওই বাড়িতে অবস্থানরত সবার হাত-পা বেধে নগদ টাকা, স্বর্ণালংকার, মোবাইল ফোনসহ প্রায় ২ লাখ ৮৩ হাজার ৮ শ টাকার মালামাল লুট করে নেয়। ঘটনার পাঁচ দিনের মাথায় ডাকাত দলের দুই সদস্য আটক হওয়ায় এলাকার সাধারণ মানুষের মধ্যে স্বস্তি ফিরে এসেছে।