অসুস্থ স্ত্রীর চিকিৎসার টাকা হারিয়ে দিশেহারা চুয়াডাঙ্গা তালতলার বৃদ্ধ মজিবার

426

সাহায্যের কথা বলে ভিক্ষুকের টাকা নিয়ে চম্পট প্রতারকের

নিজস্ব প্রতিবেদক: ভিক্ষুককে সাহায্যের কথা বলে হাসপাতালে নিয়ে এসে তার কাছে থাকা নগদ টাকা নিয়ে চম্পট দিয়েছে এক প্রতারক। এক চিকিৎসক দরিদ্র মানুষকে সাহায্য করবেন বলে ওই ভিক্ষুককে হাসপাতালে নিয়ে আসে প্রতারক ওই যুবক। পরে ভিক্ষুকের কাছে থাকা স্ত্রীর চিকিৎসার নগদ ১৫শ’ টাকা নিয়ে পালিয়ে যায় সে। গতকাল বৃহস্পতিবার বেলা ১১টার দিকে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় চুয়াডাঙ্গা সদর থানায় অভিযোগ দায়ের করেছেন বৃদ্ধ ভিক্ষুক মজিবার বিশ্বাস (৮০)। তিনি চুয়াডাঙ্গা পৌর এলাকার তালতলা গোরস্তানপাড়ার মৃত মোহাম্মদ বিশ্বাসের ছেলে। এদিকে, হাসপাতালের সিসিটিভি ক্যামেরায় প্রতারককে সনাক্ত করা গেছে। তাকে খুঁজছে পুলিশ।


জানা গেছে, ভিক্ষুক মজিবার বিশ্বাস প্রতিদিনের ন্যায় গতকাল সকালে চুয়াডাঙ্গা সমবায় নিউ মার্কেটের সামনে ভিক্ষা করছিলেন। বেলা ১১টার দিকে অজ্ঞাত এক যুবক এসে তাকে বলে- এক ডাক্তার একজন গরিব লোককে নিয়ে যেতে বলেছে। তাকে সাহায্য করবেন ওই চিকিৎসক। ভিক্ষুক মজিবার যাহায্যের কথা শুনে হাসপাতালে যেতে রাজি হয়। পরে ওই যুবক পাঁচশত টাকা খুচরা করার কথা বলে। এ সময় ভিক্ষুক মজিবার তার ব্যাগ থেকে ১৫শ’ টাকা বের করলে ওই টাকাগুলো নিয়ে নেয় যুবক। হাসপাতালে গিয়ে ওই টাকা ফেরত দেয়ার কথাও জানায় সে। পরে অটোযোগে হাসপাতালে আসে তারা। অটোভাড়া বাবদ ১০ টাকাও নেয়া ভিক্ষুকের কাছ থেকে। পরে ভিক্ষুককে সদর হাসপাতালের দোতলার সিড়িতে নিয়ে যায় যুবক। বৃদ্ধ ভিক্ষুককে সেখানে রেখে আসছি বলেই চম্পট দেয় প্রতারক। পরে তাকে অনেক খোজাখুজির পরও আর পাওয়া যায়নি। ভিক্ষুক মজিবার বিশ্বাস ভাতা পাওয়া ১৫শ’ টাকা তার স্ত্রীর চিকিৎসার জন্য রেখেছিলেন। এ সময় ভিক্ষুক মজিবার বিশ্বাস কান্নায় ভেঙে পড়েন। তিনি বলেন- আমার স্ত্রী ৫ বছর যাবত বিছানাগত। কালকে তার চিকিৎসার জন্য ভিক্ষা করে টাকা গুছিয়েছিলাম। আজ সব নিয়ে গেল। আমি কি দিয়ে ডাক্তার দেখাবো? পরে সদর হাসপাতালে সিসিটিভি ক্যামেরায় ফুটেজ দেখে প্রতারককে সনাক্ত করেন ভিক্ষুক মজিবার। ফুটেজে দেখা যায়, প্রতারক ওই যুবক ভিক্ষুককে নিয়ে হাসপাতালের সিড়ি দিয়ে দোতলায় যাচ্ছে। এ ঘটনায় চুয়াডাঙ্গা সদর থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেন বৃদ্ধ ভিক্ষুক মজিবার বিশ্বাস। উল্লেখ্য, গত কয়েক মাস আগেও সদর হাসপাতালে সাপে কাটা রোগীর স্বজনের নিকট থেকে নগদ টাকা ও স্বর্ণের চেইন কৌশলে ছিলতাই হয়। পরে হাসপাতালের সিসি ক্যামেরার ফুটেজে প্রতারককে সনাক্ত করা হয়। ওই প্রতারক আর ভিক্ষুকের সাথে প্রতারণা করা ব্যক্তিটি একজনই।